crimepatrol24
২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, এখন সময় ভোর ৫:১২ মিনিট
  1. অনুসন্ধানী
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন-আদালত
  6. আঞ্চলিক সংবাদ
  7. আন্তর্জাতিক
  8. আফ্রিকা
  9. আবহাওয়া বার্তা
  10. আর্কাইভ
  11. ইউরোপ
  12. ইংরেজি ভাষা শিক্ষা
  13. উত্তর আমেরিকা
  14. উদ্যোক্তা
  15. এশিয়া

ঝিনাইদহে রাস্তা বিহীন খালে ৩১ লাখ টাকার ব্রীজ !

প্রতিবেদক
মো: ইব্রাহিম খলিল
জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ ৩:৫০ অপরাহ্ণ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :
ঝিনাইদহে রাস্তাবিহীন খালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর ৩১ লাখ টাকার ৪০ ফুট দৈর্ঘ্য একটি ব্রীজ নির্মাণ করেছে। ব্রীজটি কার্যত দুই ইউনিয়নবাসির কোন কাজেই আসছে না। ফলে সরকারের বিপুল পরিমান অর্থ পানিতে পড়েছে।

সরেজমিন দেখা গেছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গাছা কুতুবপুর গ্রামের সিরিষকাঠ খালে ২০১৫/১৬ অর্থ বছরে ৩০ লাখ ৯০ হাজার টাকা ব্যয়ে ব্রীজটি নির্মাণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর।

স্থানীয় গ্রামবাসি গোলাপ মন্ডল জানান, সিরিষকাঠ খালটি মহারাজপুর ও কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নকে বিভক্ত করেছে। মহারাজপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রাম পার হয়ে ডেফলবাড়িয়া গ্রামে আসতে সিরিষকাঠ খালটি পড়ে। নির্মিত ব্রীজ ও খালের ১০০ গজ পুর্ব দিকে আব্দুলের বাড়ির কাছে সরকারি রাস্তাটি শেষ হয়েছে। এরপর রেকর্ডে আর কোন রাস্তা নেই। ডেফলবাড়ি গ্রামের যে অংশে ব্রীজটি শেষ হয়েছে সেখানে একটি পুকুর ও বাঁশ বাগান। কোন রাস্তার চিহ্ন নেই। অথচ রাস্তাবিহীন স্থানে একটি ভুয়া প্রকল্প বানিয়ে ব্রীজ করা হয়েছে বলে গোলাপ মন্ডলের অভিযোগ।

ডেফলবাড়ি গ্রামের তোতালেব মন্ডল অভিযোগ করেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর গায়ের জোরে এই ব্রীজ করেছেন যা এখন কোন কাজেই আসছে না। তিনি বলেন, রাস্তা বের করতে হলে তাদের মালিকানাধীন পুকুর ভরাট করতে হবে। অনেক গাছপালা ও কবরস্থান সরাতে হবে। কিন্তু তারা রাস্তার জন্য জমি দিবেন না।

স্থানীয় বাসিন্দা ছানারুদ্দীন জানান, ব্রীজের মাথায় তাদের ৫ শরীকের ৩৫ শতক জমি আছে। সেখানে বাড়িঘর ও গোরনস্তান রয়েছে। রাস্তার জন্য জমি দিলে তাদের বাড়িঘর ভাংতে হবে। কিন্তু তাদের বসবাসের আর কোন জায়গা নেই।

বিষয়টি নিয়ে মহারাজপুর ইউনিয়নের স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার জালাল উদ্দীন জানান, ব্রীজটি নির্মাণের ফলে মানুষের কোন কাজেই আসছে না। অথচ যেখানে ব্রীজ করা দরকার সেখানে করা হয়নি। এটা একটা ভুল পরিকল্পনা বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

মহারাজপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবু বকর বলেন, ব্রীজের পশ্চিম দিক দিয়ে রাস্তা করার জন্য তিনি স্থানীয় এমপির কাছে বরাদ্দ চেয়েছিলেন। তিনি দিতেও চেয়েছিলেন। কিন্তু আমি আর চেয়ারম্যান হতে পারি নি বলে কাজটি থেমে গেছে।

বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী হাসিবুর রহমান জানান, প্রথমে আমরা ব্রীজ নির্মাণের প্রস্তাবটি বাতিল করে দিই। কিন্তু সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকরের রাস্তা করার প্রতিশ্রুতি পেয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরে নতুন করে প্রকল্প পাঠিয়ে ব্রীজটি করা হয়। এ ক্ষেত্রে আমাদের কোন ত্রুটি ছিল না।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাম্মি ইসলাম জানান, যখন ব্রীজটি নির্মিত হয়, তখন আমি ছিলাম না। তাই এ বিষয়ে আমি কিছুই বলতে পারবো না।

Share This News:

সর্বশেষ - লাইফ স্টাইল

আপনার জন্য নির্বাচিত
সুন্দরগঞ্জে ৭ জুয়ারী গ্রেফতার

সুন্দরগঞ্জে ৭ জুয়ারী গ্রেফতার

আইলচারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দোয়া ও সমর্থন চান সাবেক চেয়ারম্যান মোতালেব হোসেন

কেএমপি’র অভিযানে মা’দক ও নগদ অর্থসহ ৩ ব্যবসায়ী গ্রে’ফতার

কেএমপি’র অভিযানে মা’দক ও নগদ অর্থসহ ৩ ব্যবসায়ী গ্রে’ফতার

হোমনায় ধর্ষণের শিকার হলো শারীরিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধি !

মাগুড়ায় আ’গ্নেয়াস্ত্র হাতে সেই ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেফতার

কেএমপি’র অভিযানে মা-দ-ক-সহ ১০ ব্যবসায়ী গ্রেফতার

গফরগাঁওয়ে বাক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ

সিলেটে নারী কনস্টেবলের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থা: পুলিশ পরিদর্শক ক্লোজড

কেএমপি’র অভিযানে চো’রাইমালসহ ১৩ চো’র গ্রে’ফতার

নীলফামারী আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

ঝিনাইদহে সিও সংস্থার উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ