crimepatrol24
২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, এখন সময় রাত ৩:৪৬ মিনিট
  1. অনুসন্ধানী
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন-আদালত
  6. আঞ্চলিক সংবাদ
  7. আন্তর্জাতিক
  8. আফ্রিকা
  9. আবহাওয়া বার্তা
  10. আর্কাইভ
  11. ইউরোপ
  12. ইংরেজি ভাষা শিক্ষা
  13. উত্তর আমেরিকা
  14. উদ্যোক্তা
  15. এশিয়া

ঝিনাইদহ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে জমজমাট ভর্তি বাণিজ্য

প্রতিবেদক
মো: ইব্রাহিম খলিল
এপ্রিল ২৮, ২০১৯ ৪:১৪ অপরাহ্ণ
ঝিনাইদহ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে জমজমাট ভর্তি বাণিজ্য


ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :
ঝিনাইদহ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে টাকার বিনিময়ে গোপনে ছাত্র ভর্তির তথ্য ফাঁস হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে অভিভাবকদের মাঝে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুজ্জামান সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালা ভঙ্গ করে বিভিন্ন শ্রেণিতে ১০ জনেরও বেশি ছাত্র অর্থের বিনিময়ে ভর্তি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগের কপি দুর্নীতি দমন কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ক্লাসে গিয়েও নীতিমালা বর্হিভুত ভর্তির সত্যতা মিলেছে। ভর্তিকৃত ছাত্রদের মধ্যে রয়েছে, তৃতীয় শ্রেণির দিবা শাখায় ৬০ নং রোল অনিন্দ কর্মকার, ৫৯ নং রোল সৈকত চক্রবর্তী, প্রভাতি শাখায় ৬৬ নং রোল কাজী তাহসিন রহমান, ৬৫ নং রোল তীর্থ কুন্ডু, ৬২ নং রোল মাহি, ৬৩ নং রোল মাহির, ৭ম শ্রেণির দিবা শাখায় খ-৫৭ নং রোল সৈয়দ মুক্তাদির ইসলাম আপন, একই শ্রেণির প্রভাতি শাখায় খ-৫৭ নং রোল তাহমিদ ইয়াদ, চতুর্থ শ্রেণির দিবা শাখায় ৬০ নং রোল জুনায়েদ মাহমুদ লনি ও ৬১ নং রোল অর্ঘ্য শ্রেষ্ঠ রায়। ভর্তিকৃত এসব ছাত্রের নাম জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে নেওয়া এডমিশন পরীক্ষার মেধা তালিকায় নেই। ফলে প্রমাণিত হয় অবৈধ আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক এ সকল শিক্ষার্থী ভর্তি করেছেন।

তথ্য নিয়ে জানা গেছে, শিক্ষা সচিব স্বাক্ষরিত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালার ২৫ নং ক্রমিকে উল্লেখ করা আছে, সরকারি কর্মকর্তাদের আন্ত:জেলা বদলীর কারণে বদলীকৃত কর্মস্থলের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষার উপ-পরিচালক অথবা যে জেলায় উপ-পরিচালক নেই সেখানে জেলা শিক্ষা অফিসারের প্রত্যায়নক্রমে কর্মকর্তা- কর্মচারীদের সন্তানদের ভর্তির সুযোগ থাকবে। তবে শুন্য আসনের অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করা যাবে না। অনিবার্য কারণে স্কুলে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করতে হলে মন্ত্রণালয়ের পুর্বানুমতি গ্রহণ করতে হবে। প্রাপ্ত তথ্য মতে ঝিনাইদহ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে যে ১০ জন ছাত্র ভর্তি করা হয়েছে তারা কেউ সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীর সন্তান নয়। তারা শহরের ব্যাবসায়ী ও ঠিকাদারদের সন্তান বলে অনুসন্ধান করে জানা গেছে। আর্থিক সুবিধা নিয়ে প্রধান শিক্ষক মিজানুজ্জামান তাদের ভর্তি করেছেন।

এমনও অভিযোগ উঠেছে ছাত্র ভর্তি করতে দুই থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ভর্তি হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুজ্জামান (মোবাইল নং ০১৭১৫৪৮৯৩৮৩) ভর্তির তথ্য স্বীকার করে বলেন, আমার একক সিদ্ধান্তে এই ভর্তি হয়নি। এছাড়া টাকার বিনিময়ে ভর্তি করার কোন সুযোগ নেই। তিনি নিজের পরিচয় জাহির করে বলেন, আমি এই জেলারই সন্তান। শৈলকুপার গাড়াগঞ্জে আমার বাড়ি। এক এমপি আমার আত্মীয়। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমার বন্ধু ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমার খালু।

Share This News:

সর্বশেষ - লাইফ স্টাইল

আপনার জন্য নির্বাচিত
সুন্দরগঞ্জে ৭ জুয়ারী গ্রেফতার

সুন্দরগঞ্জে ৭ জুয়ারী গ্রেফতার

দুর্নীতি ও নিয়ম বহির্ভূতভাবে কমিটি গঠনের অভিযোগে ঈশ্বরগঞ্জ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নামে উচ্চ আদালতে মামলা

দুর্নীতি ও নিয়ম বহির্ভূতভাবে কমিটি গঠনের অভিযোগে ঈশ্বরগঞ্জ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নামে উচ্চ আদালতে মামলা

ঝিনাইদহ ডিবি ওসি’র স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

কেএমপি’র অভিযানে মা’দকসহ ৬ মা’দক কারবারি গ্রেফতার

ডোমারে ফায়ার সার্ভিস ও ডিফেন্স সপ্তাহ পালিত

সরিষাবাড়ীতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের বাজার অভিযানে দুই প্রতিষ্ঠানের দন্ড

পঞ্চগড়ে ৬ শিশুসহ ১১ রোহিঙ্গা আটক

Sed sagittis risus

ময়মনসিংহে প্রতি কেজি ৪৫ টাকা দরে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রয়

ময়মনসিংহে মাসব্যাপী সিটি তাঁতবস্ত্র মেলার উদ্বোধন করলেন মসিক মেয়র

মঠবাড়িয়ায় বিয়ে করার আশ্বাস দিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধ’র্ষণের অভিযোগে এক যুবক গ্রেফতার