সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন এর আয়োজনে সংবাদ সম্মেলন, সানোফি কে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম

 

মো. আক্তার হোসেন,বিশেষ প্রতিনিধিঃ  সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন এর আয়োজনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড এর সকল কর্মকর্তা- কর্মচারীদের প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুয়িটি, ওয়ার্কার্স পার্টিসিপেন্ট ফান্ড, পেনশন এবং ক্ষতিপূরণ দেওয়া নিয়ে সানোফি ম্যানেজমেন্টের টালবাহানা ও উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বঞ্চিত করার পাঁয়তারার প্রতিবাদে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আজ রোববার দুপুর ১২ টার সময় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে উক্ত সংবাদ সম্মেলনে সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. নুরুজ্জামান রাজুর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন, সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিব কুমার চক্রবর্তীসহ কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এবং সানোফির কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিব কুমার চক্রবর্তী লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান। সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন সভাপতি বলেন, আপনারা জানেন সানোফি অল্প কিছু টাকা নিয়ে এদেশে তার ব্যবসা শুরু করে। আর বর্তমানে প্রায় ৪’শ কোটি টাকায়‌ ৫৫ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছে। সানোফির এই উত্থান কে করেছে? এটা নিশ্চয়ই আমাদের পূর্ববর্তী কলিগগণ এবং আমরা করেছি, আমরা এ ধারা অব্যাহত রেখেছিলাম। সানোফি তার অংশের সম্পূর্ণ শেয়ার বিক্রির মাধ্যমে এদেশের ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছে, তাহলে কেন আমাদের কম্পেন্সেশন দেওয়া হবে না? আপনারা কিসের স্বার্থে এই কোম্পানীর সমস্ত কলিগদের ঘামে রক্তের ভেজা অর্জিত, জীবনের সঞ্চয় ১০০ কোটি টাকা আপনারা নিজেদের প্যাকেজে রেখে দিলেন, আমি বলতে চাই নীল নকশাটা কি? আপনার নিজের স্বার্থ এবং চেয়ার ঠিক রাখার জন্য আমাদেরকে ক্রীতদাসের মত বিক্রি করে দিতে চাচ্ছেন। গত ১২ মাসে সানোফিতে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ইনসিডেন্ট ঘটেনি এর ক্রেডিট নিশ্চয়ই আমাদের। সরাসরি হোক কিংবা পার্শিয়ালি হোক দেশের সমস্ত কলিগ আপনাদের এই প্রজেক্ট শেষ করার জন্য সহযোগিতা করেছে । আপনারা একটা ভালো মূল্য পেয়েছেন। আপনাদের ভুললে চলবেনা যে, আপনাদের সফলতার পিছনে সম্পূর্ণ অবদান আমাদের।আপনারা নিশ্চই অবগত আছেন, অতীতে অন্যান্য মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলো চলে যাওয়ার সময় এমপ্লোয়িদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো সুষ্ঠুভাবে সমাধান করেছেন। আমরা আজ অধিকার আদায়ে সোচ্চার। আমাদেরকে ফাঁকি দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন না, এর ফলাফল ভাল হবে না এবং এটা ব্যর্থ চেষ্টাই থেকে যাবে। আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ার্কারস –এমপ্লীয়জ এসোসিয়েশন এর কার্যকরী কমিটির সঙ্গে আলোচনায় বসুন, তা নাহলে সনোফির সর্বস্তরের কলিগদের নিয়ে আমরা দূর্বার আন্দোলন গড়ে তুলে আপনাদেরকে আলোচনার টেবিলে বসতে বাধ্য করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বিশেষ অতিথি সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেড ওয়ারকার্স-এমপ্লোয়িজ এসোসিয়েশন এর সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দাবিগুলো যৌক্তিক। আমিও আপনাদের দাবিগুলো সমর্থন করি। আপনাদের দাবিগুলো আদায়ে যদি আমার কোনো সহযোগিতা লাগে, তাহলে আমি সর্বাত্মক সহযোগিতা করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: