মহেশপুরে নির্মাণকাজ ভাংচুর করে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি


ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:
কবির হোসেন নামে এক সমাজ সেবকের নিজের ক্রয় করা বৈধ জমিতে ঘর নির্মাণে বাধা ও নির্মাধীণ ঘরের প্রাচীর ভেঙ্গে দেয়াসহ তাকে প্রকাশ্য হত্যার হুমকির গুরুতর অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার আবু তাহের ও আলমীর হোসেনের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার আলামপুর কুলবাগান গ্রামে। জমির মালিক মহেশপুর উপজেলার আজমপুর ইউনিয়নের আলামপুর কুলবাগান এলাকার সমাজ সেবক কবির হোসেন অভিযোগ করেন, ১৯৯৭ সালের দিকে তিনি রাস্তার পাশের ২শতক জমি ক্রয় করেন। নিয়ম অনুযায়ী সকল কাজ সম্পন্ন করে তিনি ওই জমিতে পাকা ঘর নির্মাণের জন্য ঘরের ভীত তোলেন। এরই মধ্যে ওই ভীতের উপর নির্মাণ কাজ করতে গেলে ওই এলাকার মৃত সামছুল হকের ছেলে আবু তাহের এবং আবু তাহেরের ছেলে আলমগীর হোসেন বাধা সৃষ্টি করে। বিষয়টি নিয়ে জমির মালিক কবির হোসেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে বিচার দেন। বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদ খতিয়ে দেখে কবির হোসেনের পক্ষে রায় দিয়ে নির্মাণ কাজের অনুমতি দেন এবং অভিযুক্ত আবু তাহের গং-কে ১৫শত টাকা জরিমানা করেন। পরবর্তীতে আবু তাহের গং- আদালতকে ভুল বুঝিয়ে ওই জমির উপর ১৪৪ধারা জারী করে নিয়ে আসেন। বাধ্য হয়ে কবির হোসেন আদালতে চ্যালেঞ্জ করলে তার পক্ষেই রায় আসে। ইতোমধ্যে কবির হোসেন আবারো ওই ভীতের উপর ঘরের নির্মাণ কাজ শুরু করলে রাতের অন্ধকারে ঘরের প্রাচীর ভেঙ্গে দেয় আবু তাহের গং।

কবির হোসেন অভিযোগ করেন আবু তাহের ও তার ছেলে আলমগীর হোসেন প্রকাশ্য হুমকি দিয়ে বলেছেন, ঘরের কাজ বন্ধ না করলে তাকে হত্যা করে তারা জেলে যেতে প্রস্তুুত আছেন। এ ছাড়াও নির্মাণ শ্রমিকদের সাথে আবু তাহের গং বাজে আচরণ করছেন। আর কোন উপায় না পেয়ে ইতোমধ্যেই কবির হোসেন বিষয়টি নিয়ে মহেশপুর থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন।

এব্যাপারে মহেশপুর থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মোরশেদ খান বলেন, বিষয়টি নিয়ে দ্রুতই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কবির হোসেন আরো বলেন,বার বার নির্মাণ কজে বাধা দেওয়ায় এবং নির্মাণাধীন প্রাচীর ভেঙ্গে দেয়ায় তিনি বেশ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। পাশাপাশি তিনি নিরাপত্তা হীনতার মধ্যে দিন যাপন করছেন। সে কারণে তিনি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: