প্রায় ১ বছর পর ফের যমুনা সার কারখানায় উৎপাদন শুরু

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি :
জামালপুরের সরিষাবাড়ীর তারাকান্দিতে অবস্থিত বিসিআইসি’র নিয়ন্ত্রাণাধীন যমুনা সার কারখানা দেশের বৃহৎ ও একমাত্র দানাদার ইউরিয়া সার উৎপাদনকারী শিল্প প্রতিষ্ঠান। এ সারকারখানাটি ৩৭০ পি এস আই চাপে ৪৬ এমএমসিএফডি গ্যাস প্রয়োজন হয়। ফলে দৈনিক-১৭০০ মেঃটন দানাদার ইউরিয়া সার বাৎসরিক ৫ লক্ষ ৬১ হাজার মেঃটন, এবং দৈনিক ১০৭৮ মেঃ টন এ্যামোনিয়া বাৎসরিক ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৭’শ ৪০ মেঃ টন উৎপাদনে সক্ষম।
এ কারখানা উত্তরাঞ্চলের ১৯ জেলায় কৃষকদের মাঝে স্বল্প সময়ে সারের চাহিদা পূরণ করে আসছে। ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর হতে দীর্ঘ ৩৭৮ দিন কারখানার ষ্টার্ট আপ ফিডার বিস্ফোরিত হয়ে যমুনা সার কারখানার উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। কারখানাটি চালু করতে জেএফসিএল কর্তৃপক্ষ মিটসুবিশি হেভী ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ জাপান থেকে সরবরাহ করা ষ্টার্ট আপ ফিডারটি সংযোজন কাজ শেষে ৫ ডিসেম্বর এ্যামোনিয়া উৎপাদনে সক্ষমতা অর্জনে গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে পুনরায় কারখানার সার উৎপাদন শুরু করা হয়েছে। যন্ত্রাংশটি প্রায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকায় ক্রয় করেছে বিসিআইসি কর্তৃপক্ষ।
জানা গেছে, সার কারখানাটি দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকায় দানাদার ইউরিয়া সার ও এ্যামোনিয়া বিক্রি খাতে রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে। যমুনা সার কারখানায় ১ দিন উৎপাদন বন্ধ থাকলে সরকারকে ৩ কোটি টাকার লোকসান গুনতে হয়। যমুনা সার কারখানা থেকে ১৯টি জেলার প্রায় ২ হাজার সার ডিলার সার সরবরাহ করে। দীর্ঘ দিন পর যমুনায় সার উৎপাদন শুরু হওয়ায় কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারী-শ্রমিক, স্থানীয় এলাকার ব্যবসায়ী, পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে উৎফুল্ল লক্ষ করা গেছে।সার কারখানাটি বাণিজ্যাকভাবে ১৯৯২ সালের ১লা জুলাই উৎপাদন শুরু করে। ২০১১-১২ অর্থ বছরে প্রায় ১’শ ৫৬ কোটি টাকা লাভের মুখ দেখে। বিসিআইসি ২ লাখ মেঃ টন বার্ষিক লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছে।
সারকারখানায় ২০১৯-২০ অর্থ বছরের জন্য ৩ লক্ষ ৬০ হাজার ৩৫ মেঃ টন সার আমদানি করা হয়েছে। এর মধ্যে মজুদ রয়েছে- ৩৩ হাজার ৩’শ মেঃ টন।
জানতে চাইলে যমুনা সার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক খান জাবেদ আনোয়ার জানান, তিতাস গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি সারকারখানার চাহিদা অনুযায়ী ৩৭০ পি এস আই চাপে ৪৬ এমএমসিএফডি গ্যাস নিরবিচ্ছিন্ন সরবরাহ দিলে সারকারখানার সার উৎপাদন ধরে রাখা যাবে। গ্যাস সরবরাহ স্বল্পতায় –হ্রাস বৃদ্ধির ফলে গ্যাস প্রেসার ২৫০ পি এস আই এবং সর্বনিম্ন ১৫০ তে নেমে আসে। আমরা ১৮০ পি এস আই চাপে বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় সার উৎপাদনে যেতে সক্ষম হয়েছি। গ্যাস সরবরাহ সচল রাখার জন্য তথ্য প্রতিমন্ত্রী আলহাজ ডাঃ মুরাদ হাসান এমপি’র সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে তিনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন।সারকারখানাটিতে সার উৎপাদনে কারখানার নিজস্ব জনবলসহ স্থানীয় রাজনৈতিক সুধী মহল আন্তরিক সহযোগিতা করার জন্য সকলকে সাধুবাদ জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: