ড্রেনের জায়গা অবৈধভাবে দখল, সরিষাবাড়ী পৌরসভার ৩৪ লাখ টাকার ড্রেনেজ নির্মাণ কাজ বন্ধ


তৌকির আহাম্মেদ হাসু সরিষাবাড়ী(জামালপুর) প্রতিনিধিঃ জামালপুরের সরিষাবাড়ী পৌরসভার ৩৪ লাখ টাকার ড্রেন নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে  বলে পৌর সভা সূত্রে জানা গেছে।পৌর সভা সূত্রে জানা গেছে,সরিষাবাড়ী পৌরসভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের জামালপুর জেলার আটটি পৌরসভার ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের অধীন সড়ক ও জনপথের সড়ক হতে আরামনগর বাজার কাঠপট্টি হয়ে সুবর্ণ খালী নদী পর্যন্ত ১১৫ মিটার নির্মিত সাবেক জরাজীর্ণ ড্রেনেজটি ব্যবহারের অযোগ্য হওয়ায় পুনরায় নতুন আঙ্গিকে আরসিসি ঢালাই ও কভার শ্লাভসহ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য দরপত্র আহব্বান করা হয়।উক্ত প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ৩৪ লক্ষ টাকা।এ কাজটির ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স পাঠান এন্টারপ্রাইজ।ড্রেনটির পার্শ্ব অধিকাংশ বাড়ি- ঘর নির্মাণের প্রাক্কালে দখল করে নিয়েছে আংশিক অংশ।তাই ড্রেনটির প্রাক্কলন অনুযায়ী ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ সম্পন্ন করতে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছে।ফলে পৌর কর্তৃপক্ষ অবৈধ দখলদারকে পর পর ৩টি নোটিশ প্রদান করলেও তা উপেক্ষা করেছে অবৈধ দখলদারগণ।পৌর সভার জায়গা খালি করতে এবং কাঠপট্টিতে বসবাসরত মালিকদের বাসাবাড়ি হতে পানি নিষ্কাশনের পাশাপাশি টয়লেটের পয়ঃনিষ্কাশন চলছে সরাসরি ড্রেনে।ফলে নিষ্কাশিত মলের দুর্গন্ধে জনজীবন বিপর্যস্তসহ পরিবেশ দূষিত হওয়ায় ড্রেনটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা পৌর কর্তৃপক্ষের সম্ভব হচ্ছে না।এ নির্মাণ কাজটি ঝুলে আছে প্রায় ৭ মাস যাবৎ।এ নিয়ে ২২ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ড্রেনেটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করতে পরিদর্শনে গিয়ে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা গোলাম রব্বানীর বাসা হতে টয়লেট থেকে পয়ঃনিষ্কাশন সরাসরি ড্রেনে সংযোগ বিদ্যমান লক্ষ করেন।পরে পৌর  মেয়র রুকুনুজ্জামান রুকন উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা গোলাম রব্বানীকে বাসা থেকে ডেকে এনে বিষয়টি অবগত করা মাত্র তিনি উল্টো মেয়রের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে অশালীন আচরণ করে এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করে।কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মেয়রের ওপর ও তাার কর্মীগণের ওপর চড়াও হয়ে মারপিটের জন্য আক্রমণ করে।

জানতে চাইলে পৌর সভার মেয়র রুকুনুজ্জামান রুকন বলেন,পৌর সভার আরামনগর বাজার কাঠপট্টিতে বসবাসরত প্রতিটি পরিবারকে নোটিশ দিয়ে এবং স্ব-শরীরে উপস্থিত হয়ে অনুরোধ করে বলেছি টয়লেটের মল সরাসরি ড্রেনে নিষ্কাশন করবেন না। এমতাবস্থায় ২২ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ড্রেনটি পরিদর্শন করতে গেলে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা গোলাম রব্বানীর বাসার টয়লেট থেকে পয়ঃনিষ্কাশন সরাসরি সংযোগ থাকতে দেখি।পরে গোলাম রব্বানীকে বিষয়টি অবগত করতে গেলে তিনি উল্টো মেয়রের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে অশালীন আচরণসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তার ওপর ও তার কর্মীগণের ওপর চড়াও হয়ে মারপিটের জন্য আক্রমণ করে গোলাম রব্বানী।সে পৌর সভার আইন লঙ্ঘন করে বিনা অনুমতিতে বাসা বাড়ী নির্মাণ,অবৈধভাবে পৌর সভার ড্রেনের জায়গা দখল এবং টযলেটের মল ড্রেনে সংযোগ দিয়ে পরিবেশ দূষিত করার অপরাধে তার বিরুদ্ধে পৃথক পৃথক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে।

অভিযুক্ত সরিষাবাড়ী উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা গোলাম রব্বানী বলেন, পৌর সভার প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে পৌরসভা  কর্তৃপক্ষ নির্মিত ড্রেনটির পাড় ঘেষে এ এলাকার সবাই বাউন্ডারী ওয়াল এবং গেট নির্মাণ করে ড্রেনটি ব্যবহার হয়ে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: