ঝিনাইদহে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে কর্মস্থল ত্যাগ


ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :
বাংলাদেশ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে গত ১৩ জুলাই দেশের সকল সরকারি অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের উপসচিব কাজী মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে জানানো হয় যে, সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের বিস্তার দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় আসন্ন ঈদুল আজহার সময়ে উক্ত সংক্রমণের বিস্তার রোধে সকল সরকারি / বেসরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ঐচ্ছিক ছুটিতে আবশ্যিকভাবে কর্মস্থলে অবস্থানের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো। পরবর্তীতে গত ২৬ শে জুলাই জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সূত্র মোতাবেক প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রশাসনের পরিচালক মো. মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের, “ঈদুল আজহার ছুটিতে কর্মস্থান ত্যাগ না করার বিষয়ে সরকারি নির্দেশনা প্রতিপালন” এই শিরোনামে পত্র প্রদানের মাধ্যমে সকল বিভাগে অবগত করে। ঝিনাইদহের বেশ কয়েকটি অফিসে সরকারের নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে কর্মস্থান ত্যাগ করেছে। ঝিনাইদহ পিটি আই সুপার সালাউদ্দিন। গত ২ জুলাই রোজ রবিবার দুপুরের দিকে ঝিনাইদহ পিটিআই এ গেলে দেখা যায় তার কার্যালয়ে তালা ঝুলছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায় যে, তিনি তার নিজ বাসস্থান মাগুরাতে অবস্থান করছেন।

এ প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ পিটি আই সুপার সালাউদ্দিনের সাথে মোবাইলে কথা বললে তিনি বলেন, আমি ঝিনাইদহ পিটি আইয়ের চলতি দায়িত্বের সুপার। সুপার আসলে আমাকে ওখান থেকে চলে আসতে হবে। আমি আধা ঘণ্টার জন্য বাসায় গিয়েছিলাম। একই অবস্থা ঝিনাইদহ সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে। সেখানেও দেখা গেল অধ্যক্ষের কার্যালয় তালাবদ্ধ । আরও খোঁজ নিয়ে জানা গেল, অধ্যক্ষের বসবাসের জন্য প্রতিষ্ঠানে আবাসিক ভবন থাকলেও তিনি ওই আবাসিক ভবনে থাকেন না। তিনি তার নিজ বাসস্থান মাগুরা থেকে অফিস করে থাকেন।

এ প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের খলিলুর রহমান বলেন, অধ্যক্ষের বসবাসের বাসভবনে আমার পূর্বের আরও ৪ জন অধ্যক্ষ থাকতেন না। আমিও থাকি না। তাছাড়া সরকার বলেছে, ৫৭ এর বয়সের কাছাকাছি যাদের বয়স তাদের সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে অফিস করতে। আমি নিয়মিত অফিস করি। তবে আমি যখন না থাকি তখন অন্য একজনকে দায়িত্ব দিয়ে আসি।

কর্মস্থান ত্যাগ না করার নির্দেশনা পত্র পেয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি নির্দেশনা পেয়েছেন বলেও জানান ।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একই অবস্থা। তার সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা গেল , তিনি প্রায় গত ১ সপ্তাহ যাবত বিনা ছুটিতে অফিসে আসেন না। এ প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার আরিফ সরকারের সাথে মোবাইলের ০১৭২৪১৬৪২১৮ নম্বরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার মোবাইল বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

একই অবস্থা ঝিনাইদহে উপজেলা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের। কর্মস্থলে নেই প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী জহির রাহান। এই প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ উপজেলা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী জহির রাহানের সাথে মোবাইলে কথা বললে তিনি জানান, আগামী বুধবার ঢাকায় মিটিং আছে। তাই আমি ঈদের দিনে ঢাকায় চলে এসেছি। কর্মস্থরে থাকার সরকারি নির্দেশনা পেয়েছেন বলেও তিনি জানান। তিনি আরও জানান, তার পরিবার ঢাকায় থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: