চুয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন সহকারী কৃষি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অসহায় শত কৃষকের কার্ড জালিয়াতি, অভিযোগ দায়েরে তোলপাড়!


ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :
চুয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অসহায় শত কৃষকের কার্ড জালিয়াতি কারায় ইউএনও’র কাছে প্রায় একশত কৃষক লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ দায়ের করেছে। এঘটনায় এলাকাজুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়! লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, দেশ ব্যাপি সরকারি ঘোষণা বা বিধি মোতাবেক জেলা কৃষি কর্মকর্তা বা ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তারা সরেজমিনে গ্রামে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ধানচাষি বা কৃষকের কাছ থেকে কার্ডের বিনিময়ে নির্ধারিত মূল্যে সরকার সরাসরি ধান ক্রয় করবে। সে অনুযায়ী চুয়াডাঙ্গা সদরের ৩নং কুতুবপুর ইউনিয়নের জীবনা গ্রামের গরীব অসহায় ধান চাষিরা কার্ডের আশায় অধীর আগ্রহে পথ চেয়ে আছে। কিন্তু দিনের পর দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও জেলা কৃষি কর্মকর্তা বা ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তারা কেউই জীবনা গ্রামে আসেনি। দিশা হারিয়ে কৃষকরা জীবনা গ্রামের বিশিষ্ট ও জন প্রিয় নেতা ৩নং কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সিনিয়র সভাপতি মিলন আলীর নিকট ঘটনা জানায়। গত ৭ই মে মঙ্গলবার তারিখে জীবনা গ্রামের বেশ কয়েকজন কৃষক মিলন আলীকে সাথে নিয়ে চুয়াডাঙ্গা সদরের ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করলে যথাক্রমে মোস্তাফিজুর রহমান ও তারিফ কর্মকর্তাদ্বয় জীবনা গ্রামের কৃষকদের একে অপরের কাছে বারংবার যেতে বলে ও বেশ কয়েক দিন ঘুরাইতে থাকে। পরে বিভিন্ন সূত্র থেকে এলাকার কৃষকদের সমস্ত কার্ড জেলা কৃষি কর্মকর্তা অফিসে জমা দেওয়া শেষ হয়ে গেছে মর্মে অভিযোগকারী কৃষকরা জানতে পারে। পরে যুবলীগ সভাপতি মিলন আলীকে সাথে নিয়ে ১৩ই মে বুধবার চুয়াডাঙ্গা সদরের নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমানের কাছে জীবনা গ্রামের প্রায় একশত কৃষক লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ দায়ের করে।

সরেজমিনে গ্রামে গিয়ে কৃষকদের কার্ডের বিষয়টি তদন্ত না করেই কিছু রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের সহযোগিতায় প্রকৃত ধানচাষিদের বাদ রেখে স্বজনপ্রীতি দেখিয়ে প্রকৃত অসহায় ধান চাষিদের বাদ রেখে একাংশের কৃষকদের কার্ড জেলা কৃষি কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়ার বিরুদ্ধে সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদ্বয় মোস্তাফিজুর রহমান ও তারিফের বিরুদ্ধে লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ দায়ের করে ওই গ্রামের কৃষকরা। অভিযোগ পত্রটি নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান (ইউএও) আমলে নিয়ে সঙ্গে সঙ্গে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী গ্রামে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ধানচাষি বা কৃষকের কাছ থেকে যাচিই- বাছায় পূর্বক কার্ডের ব্যবস্থা করতে হবে, অন্যপন্থায় কার্ড সংগ্রহ করলে সেটার গ্রহণযোগ্যতা পাবেনা বলে ইউনিয়ন যুবলীগের সিনিয়র সভাপতি মিলন আলী ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজেদুর রহমান রিঙ্কুকে জানায় ৩নং কুতুবপুর ইউনিয়নের চেয়াম্যান হাসানুজ্জামান মানিক।

এ বিষয়ে ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জীবনা গ্রাম তার দায়িত্বে নেই মর্মে জানায়। আবার আরেক ইউনিয়ন সহকারি কৃষি কর্মকর্তা তারিফ দায়িত্বরত পুরো এলাকায় মাইকিং করে ও খবর দিয়ে সব কৃষকদের সমস্ত কার্ড জেলা কৃষি কর্মকর্তা অফিসে গত ৫ই মে ২০২০ ইং তারিখে জমা দেওয়া শেষ হয়ে গেছে বলে জানায়। তিনি বলেন, আমরা উধ্বর্তন কর্মকর্তার আদেশ অনুযায়ী কাজ করি, কৃষকদের কার্ডের বিষয়ে আমার কিছুই করার নেই।

এঘটনায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক, জেলা কৃষি কর্মকর্তা ও প্রেসক্লাবে অভিযোগের অনুলিপি প্রদান করা হয়েছে ও সঙ্গে সঙ্গে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেয়ায় নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান মহোদয়কে এলাকার অসহায় কৃষকরা আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে।
উল্লেখ্য, দেশ ব্যাপি সরকারি ঘোষণা মোতাবেক জেলা কৃষি কর্মকর্তা বা ইউনিয়ন সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা সরেজমিনে গ্রামে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ধানচাষি বা কৃষকের কাছ থেকে যাচিই- বাছায় পূর্বক কার্ডের বিনিময়ে নির্ধারিত মূল্যে সরকার সরাসরি ধান ক্রয় করবে। কৃষি উপকরণসহ সব ধরনের সরকারি সহায়তা সহজভাবে পেতে কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ড চালু করা হয়েছে। এই কর্মসূচির আওতায় সারা দেশে এক কোটি ৮২ লক্ষ কৃষক কৃষি কার্ড পাবেন। তবে এবারে প্রথম পর্যায়ে বোরো মৌসুমে সেচের জন্যে ডিজেল কেনায় ভর্তুকি বাবদ নগদ অর্থ দেয়া হবে প্রায় এক কোটি কৃষককে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: