আরিচায় পুলিশের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায়কারী ছিনতাইকারী চক্রের ২ সদস্য আটক

ক্রাইম পেট্রোল ডেস্ক : ঢাকার আরিচা মহাসড়কে রাতের আঁধারে প্রাইভেটকারে উঠিয়ে নিয়ে পুলিশ কনস্টেবলের হাত-পা বেঁধে মুক্তিপণ আদায় করেছে ছিনতাইকারীচক্র।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি মানিকগঞ্জ জেলায় কর্মরত পুলিশ কনস্টেবল শ্রী লিটন মাহাতোকে কৌশলে প্রাইভেটকারে উঠিয়ে হাত-পা বেঁধে হত্যা করার ভয় দেখিয়ে তার পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে এক লাখ পঁচিশ হাজার টাকা মুক্তিপণ আদায় করে ছিনতাইকারী চক্রের চার সদস্য।

বুধবার দুপুরে সাভার মডেল থানায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, প্রাইভেটকারে যাত্রী উঠিয়ে ছিনতাই ও হত্যাকাণ্ডের পৃথক ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা ছিনতাই ও হত্যারকাণ্ড ঘটানোর বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছে।

গ্রেফতাররা হলেন- চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানার সরদারকান্দি গ্রামের মুকিত খানের ছেলে মো. শাহিন খান (৩৪) এবং মাদারিপুর জেলার কালকিনি থানার পূর্ব মাইজপাড়া গ্রামের ইস্কান্দার আলীর ছেলে মো. মুর্তুজা (৩৪)।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, প্রতারক চক্রের কাছে পুলিশ কনস্টেবল শ্রী লিটন মাহাতো ফেঁসে যাওয়ার পর আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হলে ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা ছিনতাইকারীদের গ্রেফতারে কাজ শুরু করে।

এরই ধারাবাহিকতায় গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মিরপুর-২ পোস্ট অফিসের সামনে থেকে ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেটকারসহ মুর্তুজাকে গ্রেফতার করে। একই দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশের অন্য একটি অভিযানিক দল চাঁদপুরের সরদারকান্দি গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে শাহীন খানকে গ্রেফতার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানায়, তারা গত ১৮ অক্টোবর মানিকগঞ্জের বাসিন্দা নিরাপত্তাকর্মী আলাউদ্দিনকে (৪৫) যাত্রী হিসেবে প্রাইভেটকারে উঠিয়ে টাকা-পয়সা না দেয়ায় মারধর ও হত্যা করে ধামরাইয়ের জয়পুরা এলাকার পাল সিএনজি পাম্পের পার্শ্ববর্তী ইঞ্জিনিয়ার আবু তাহেরের বাড়ির কাছে ফেলে দেয়।

একইভাবে আবু নাঈম (৫৪) ও তার চাচাতে ভাই বেলায়েত হোসেনকে প্রাইভেটকারে উঠিয়ে হাত-পা বেঁধে এটিএম কার্ডের পিন নম্বর নিয়ে এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকা এবং বেলায়েতের মোবাইলের বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে পঁচিশ হাজার টাকা ও দুটি মোবাইলফোন ছিনিয়ে নেয় চক্রটির সদস্যরা।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে এই চক্রটি কৌশলে প্রাইভেটকারে যাত্রী উঠিয়ে ছিনতাই, মুক্তিপণ আদায়সহ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়ে আসছে। বিষয়টি জানার পর চক্রটিকে ধরতে ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হলে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার করে চক্রটির দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ছাড়া ঘটনার সঙ্গে জড়িত আরও দুই সদস্যকে শনাক্ত করা হয়েছে এবং তাদের দ্রুত গ্রেফতারে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
%d bloggers like this: